মাদকের পরিবহনের উদ্দেশ্যে মহিপুর থেকে অপহৃত ফিশিং ট্রলার বাবুগঞ্জে আটক

  • আপডেট টাইম : এপ্রিল ২৬ ২০২০, ১১:৫৫
  • 320 বার পঠিত
মাদকের পরিবহনের উদ্দেশ্যে মহিপুর থেকে অপহৃত ফিশিং ট্রলার বাবুগঞ্জে আটক

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল থেকে / পটুয়াখালীর মহিপুর ফিশিং ঘাট থেকে অপহৃত একটি সামুদ্রিক মাছধরা ট্রলার মাদক আনতে টেকনাফ যাওয়ার পথে ট্রলারটি আটক করেছে বাবুগঞ্জ পুলিশ। শনিবার রাতে ব্যাপক অভিযানের মাধ্যমে ট্রলারটিআটক করা হয়।এটি মাদক পরিবহনের জন্য অপহরণ করা হয়েছিল বলে জানা গেছে। এসময় ওই ফিশিং ট্রলারের অপহৃত চালক সেলিম মাঝিকে উদ্ধার এবং অভিযুক্ত মাদক সিন্ডিকেটের সদস্য আল-আমিনকে আটক করেছে বাবুগঞ্জ থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আল-আমিন (৩৪) পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার মহিপুর গ্রামের মৃত আইনুদ্দিন মুসল্লীর ছেলে। এ ঘটনায় বাবুগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বরিশালের বাবুগঞ্জ, পটুয়াখালীর মহিপুর ও কক্সবাজারের টেকনাফ অঞ্চলের একটি সংঘবদ্ধ চক্র দীর্ঘদিন বরিশালের বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য পরিবহন, পাইকারী বিক্রি ও সরবরাহ করে আসছিল। ওই মাদক সিন্ডিকেটের কলাপাড়া উপজেলার সদস্য হুমায়ুন মৃধা এবং আল-আমিন গত ১৯ এপ্রিল মহিপুর মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ঘাট থেকে এফ.বি তানিয়া নামের একটি সামুদ্রিক মাছধরা ট্রলার ভাড়া করে। চাঁদপুর থেকে বসতবাড়ি বদলের মালামাল আনার কথা বলে ২৫ হাজার টাকা চুক্তিতে ট্রলারটি ভাড়া নেয় তারা।
ফিশিং ট্রলারটি বরিশালের দপদপিয়া এলাকায় আসার পরে মাদক সিন্ডিকেটে আরও ২ সদস্য ট্রলারে উঠে অস্ত্রের মুখে ট্রলার চালক ও ইঞ্জিন মিস্ত্রিকে জিম্মি করে। তারা বাবুগঞ্জ উপজেলার সন্ধ্যা নদীর লাশঘাটা নামক স্থানে ট্রলারটি নিয়ে আসে। শনিবার মধ্যরাতে লাশঘাটা থেকে মাদক সিন্ডিকেটের আরও ৩ সদস্য বাবুগঞ্জ উপজেলার চর উত্তরভূতেরদিয়া গ্রামের শহিদ পেয়াদা, বাবুল হাওলাদার ও ব্রাহ্মণদিয়া গ্রামের সাইফুল ইসলাম রানা ট্রলারে উঠে। এসময় তারা মাদক আনতে কক্সবাজারের টেকনাফ অভিমুখে রওনা হওয়ার জন্য ট্রলার চালককে নির্দেশ দেয়।
ফিশিং ট্রলারের চালক সেলিম মাঝি জানান, ঘটনাচক্রে ব্যাটারির চার্জ শেষ হয়ে যাওয়ায় তখন ইঞ্জিন চালু হচ্ছিল না। এসময় ইঞ্জিনমিস্ত্রি রাসেল হাওলাদার ব্যাটারি চার্জ করার কথা বলে কৌশলে ট্রলার থেকে নেমে পালিয়ে যায়। ইঞ্জিনমিস্ত্রি পালিয়ে যাওয়ায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ট্রলার চালক সেলিম মাঝিকে বেধড়ক মারপিট করে। পরে তার হাত-পা ও মুখ বেঁধে গভীর রাতে তাকে ফিশিং ট্রলার থেকে মারতে মারতে আরেকটা ট্রলারে উঠিয়ে কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় া। এদিকে পালিয়ে যাওয়া ইঞ্জিনমিস্ত্রি রাসেল পুলিশে খবর দিলে বাবুগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমানে নেতৃত্বে গতকাল শনিবার অভিযানে নামে পুলিশ। সন্ধ্যা নদীতে পুলিশের ঘেরাওয়ের মুখে ফিশিং ট্রলারের অপহৃত চালককে বাবুগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী এক দুর্গম চরে ফেলে পালিয়ে যায় মাদক সিন্ডিকেটের সদস্যরা। মধ্য রাতে হাত-পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় ট্রলার চালক সেলিম মাঝিকে উদ্ধার এবং অভিযান চালিয়ে মাদক সিন্ডিকেটের সদস্য ও মামলার ২ নম্বর আসামী আল-আমিনকে গ্রেফতার করেন বাবুগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান। এ ঘটনায় ফিশিং ট্রলারের মালিক মহিপুরের শাহজাহান হাওলাদার বাদী হয়ে মহিপুর ও বাবুগঞ্জের মাদক সিন্ডিকেটের ৮ সদস্যসহ মোট ১১ জনের নামে বাবুগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
পটুয়াখালীতে বিএনপির সমাবেশে ছাত্রলীগের হামপদ্মা সেতুতে আলো জ্বলবে ১ জুনবৃহস্পতিবার সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভস্বপ্ন হবে সত্তি ॥ ২৫ জুনরাজাপুরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সংঘর্ষে পুলিশসনারী কেলেংকারীতে জড়িয়ে বাংলাদেশ ছাড়লেন লঙ্কআগৈলঝাড়ায় ট্রাকচাপায় স্ত্রী নিহত: স্বামী হাসস্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ওপর হামলা২০ টাকার লোভ দেখিয়ে শিশুকে ‘ধর্ষণ’লিটনের পর সেঞ্চুরি মুশফিকেরওধ্বংসস্তুপে দাঁড়িয়ে লিটনের সেঞ্চুরিবুবলীকে টানা ১০ দিন বরগুনায় থাকতে হচ্ছেএনটিআরসিএতে থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষাঘাদানিকের শ্বেতপত্র “গণনাগরিক অবমাননা” -শায়দাফনের প্রস্তুতিকালে নড়েচড়ে উঠল শিশু!
%d bloggers like this: