পা‌নি ক‌মে যে‌তেই বে‌রি‌য়ে এ‌সে‌ছে কংকালসার রাস্তা

  • আপডেট টাইম : আগস্ট ২৪ ২০২০, ০৪:১৩
  • 51 বার পঠিত
পা‌নি ক‌মে যে‌তেই  বে‌রি‌য়ে এ‌সে‌ছে কংকালসার রাস্তা

রাস্তা-ঘাট থেকে নেমে গেছে প্লাবনের পানি। তবে পানি নেমে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে ভাঙা সড়কের নতুন এক দৃশ্য। যা বর্তমানে নাগরিকদের ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।ক‌য়েক‌দিন পা‌নির নী‌চে থাকা সড়কগু‌লোর অবস্থা তথৈবচ। যেন দে‌হের মাংশ খুলে বে‌ড়ি‌য়ে প‌ড়ে‌ছে কংকাল
শুধু বরিশাল নগরজুড়েই ভাঙা সড়কের দেখা মিলছে এমনটা নয়, জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়নের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক খানাখন্দে ভরে গেছে। আর জেলার মধ্য দিয়ে আঞ্চলিক সড়ক এবং মহাসড়কেও সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য ছোট-বড় গর্তের।

প্রকৌশল বিভাগ সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অতিরিক্ত বৃষ্টি ও জোয়ারের পানির কারণেই সড়কে নতুন করে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। আর যেসব জায়গা আগে থেকে ভাঙা ছিলো সেগুলো আরও বড় আকার ধারণ করেছে। সব মিলিয়ে এবারে ক্ষতির পরিমাণ প্রলয়ঙ্কারী ঘূর্ণিঝড় সিডর পরবর্তী সময়ের কাছাকাছি হবে বলে ধারণা তাদের।

নগরের ভাটিখানা এলাকার বাসিন্দা মঈনুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, বিগত সময়ের জোয়ারের পানির প্লাবন কিংবা ঝড়ে নগরের নিম্নাঞ্চলগুলো তলিয়ে যেতে দেখেছেন তিনি। তবে তার বাসা থেকে সদররোডে আসতে ভাটিখানা সড়কে তেমনভাবে কখনো পানি জমতে দেখননি। এবারেই প্রথম ফুটপাতসহ সড়ক ডুবে যেতে দেখেছেন।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আদনান বলেন, নগরের প্রধান কয়েকটি সড়ক ছাড়া বেশিরভাগ সড়কই ভাঙাচোরা ছিলো। তবে গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণ শেষে এবং জোয়ারের পানি নেমে যাওয়ার পর এখন নগরের সড়কের অবস্থা অনেকটাই বেহাল। যেসব জায়গাতে ছোট-খাটো খানাখন্দ ছিলো তার আকারও এখন বড় হয়ে গেছে। পাশাপাশি ভালো জায়গাগুলোতেও খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে।

থ্রি হুইলার চালক আলামিন জানান, নগরের কাউনিয়া প্রধান সড়ক, ভাটিখানা সড়ক, আমানতগঞ্জ সড়ক, বান্দরোড, সিএন্ডবি মহাসড়কের পাশের সড়কসহ বর্ধিত এলাকার বেশিরভাগ সড়কই এখন খানাখন্দে ভরা। আর সেই খানাখন্দের মধ্য দিয়ে যাত্রীসহ যানবাহন চালানো বড়ই ভোগান্তি ও কষ্টের। বড় বড় খানাখন্দে কাঁদাপানি এখনো জমে রয়েছে, যা ভোগান্তিকে আরও বাড়িয়েছে।

এদিকে, মহাসড়কে চলাচলরত যানবাহন চালকরা বলছেন, ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কসহ বিভিন্ন উপজেলার সড়ক ও আঞ্চলিক মহাসড়কেও টানা কয়েকদিনের বৃষ্টির পর ছোট ও মাঝারি আকারের গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যদিও অনেক জায়গার গর্তে স্থানীয় এবং সড়ক ও জনপদ বিভাগের উদ্যোগে ইট দেওয়া হয়েছে। তবে বরিশালে চরকাউয়া থেকে লাহারহাট পর্যন্ত সড়কের অবস্থা অনেকটাই বেহাল।

এ রুটের নিয়মিত যাত্রী রাকিব জানান, সড়ক ভাঙা থাকার কারণে এখন আর বাসে যাতায়াত করেন না। বেশি ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেলে যাতায়াত করতে হচ্ছে তাকে।

অপরদিকে, বরিশাল নগর থেকে সদর উপজেলার লামচরি পর্যন্ত সড়কেরও বেহাল দশা। ওই এলাকার বাসিন্দা রাসেল জানান, নদী ভাঙনের শিকার চরবাড়িয়া ইউনিয়নের লামচরিতে যাতায়াতের ৬ কিলোমিটার সড়ক আগে থেকেই ভাঙা ছিলো। অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে কীর্তনখোলা নদী তীরবর্তী এ এলাকা পুরোটাই পানিতে প্লাবিত হয়। পানি নেমে যাওয়ার পর সড়কের অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে।

আর শুধু বরিশাল নগর বা সদর নয় জেলার মেহেন্দিগঞ্জ, আগৈলঝাড়া, বানারীপাড়া, বাকেরগঞ্জ উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকার বেশকিছু সড়ক ভাঙাচোরা রয়েছে। যা দ্রুত সংস্কার করে ভোগান্তি লাঘবের দাবি জানিয়েছেন বাসিন্দারা।

বরিশালের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) নির্বাহী প্রকৌশলী শরীফ মো. জামাল উদ্দিন বলেন, পিচের বড় শত্রু পানি। আর পানির কারণেই এবারে বরিশাল অঞ্চলের রাস্তাঘাট ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। একে তো বৃষ্টি, তার ওপর বন্যার পানির কারণে রাস্তাঘাটের এমন ক্ষতি হয়েছে যা সিডরের সময়ের ক্ষতির কাছাকাছি চলে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পিচ-পাথর উঠে গিয়ে খানাখন্দ সৃষ্টির পাশাপাশি অনেক জায়গায় রাস্তার খোয়া-বালুসহ ধুয়ে নেমে গেছে।
সুত্র- বাংলা নিউজ

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

হালিমা খাতুন স্কুলের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি, বরিশাল







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
নৌযান চলাচলের অনুমতির দাবিতে বরিশালে বিক্ষোসাংবাদিক রোজিনার ওপর হামলা ও মামলার প্রতিবাসাংবাদিক রোজিনার রিমান্ড নাকচ, কারাগারে পাঠাস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংবাদ সম্মেলন বয়কট সরোজিনাকে হেনস্তার ঘটনায় মামলা করবেন স্বামীবরিশালে ‘ফেসবুক লাইভে’ গিয়ে যুবকের আত্মহত্যকলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিকা দবরিশালে বাসদের চাঁদাবাজি মামলার গ্রেফতার আ’পটুয়াখালীতে খালে পড়ে নিখোঁজ শিশুর লাশ উদ্ধারবরিশালে বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রীর মৃত্যু, পুলিশ অবশেষে ফেরি চলাচলের অনুমতিসাবধান / টাকায় করোনা ভাইরাস“অপরাধ মুক্ত সমাজ বিনির্মানে কাজ করতে চাই Rকুয়াকাটার সৈকতে ভেসে আসছে একের পর এক মৃত ডলফিহেফাজতের তাণ্ডব: সরাইল থানার ওসি নাজমুলকে বর
%d bloggers like this: