তথ্য গোপন করায় দু’বছর পর পদ হারালেন উপজেলা চেয়ারম্যান

  • আপডেট টাইম : ফেব্রুয়ারি ১৭ ২০২১, ০৭:৪৯
  • 21 বার পঠিত
তথ্য গোপন করায় দু’বছর পর পদ হারালেন উপজেলা চেয়ারম্যান

ঋণখেলাপির তথ্য গোপন করে নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার দুই বছর পর আদালতের এক আদেশে আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের পদ হারিয়েছেন গোলাম সরোয়ার ফোরকান।
ফোরকানের ঋণখেলাপির তথ্য সংযোজন করে বরগুনার যুগ্ম জেলা জজ প্রথম আদালত ও উপজেলা নির্বাচন ট্রাইব্যুনালে মামলা হলে আজ এ আদেশ দেন আদালত।
একই সাথে আদালত এ মামলার বাদী ও গোলাম সরোয়ার ফোরকানের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সামসুদ্দিন আহমেদ ছজুকে উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষণা করে আগামী ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে নির্বাচন কমিশনকে গেজেট প্রকাশের নির্দেশও দেন।
২০১৯ সালের ৩১ মার্চ আমতলী উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালে পটুয়াখালীর রূপালী ব্যাংকের শাখা থেকে নিজ নামে এক বছর মেয়াদে ১৮ লাখ টাকা ঋণ তোলেন ফোরকান। যা সুদে-আসলে ২৪ লাখ টাকায় দাঁড়ায়। এছাড়াও নিজের মালিকানাধীন বনানী ট্রেডার্স’র নামেও এক বছর মেয়াদে ঋণ তোলেন গোলাম সরোয়ার ফোরকান। যা সুদে-আসলে দাঁড়িয়েছে ২৭ লাখে।
যথাসময়ে এই ঋণ পরিশোধ না করায় ২০১৪ সাল থেকেই বাংলাদেশ ব্যাংকের ঋণ খেলাপির তালিকা নাম ওঠে গোলাম সরোয়ার ফোরকানের।
২০১৯ সালের ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত আমতলী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে মনোনয়নপত্রে গোলাম সরোয়ার ফোরকান তার ঋণ খেলাপির তথ্য গোপন করে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এরপর নির্বাচনে বিজয়ী হন তিনি।
পরে ওই বছরের ২১ এপ্রিল ফোরকানের ঋণখেলাপির তথ্য সংযোজন করে বরগুনার যুগ্ম জেলা জজ প্রথম আদালত ও উপজেলা নির্বাচন ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেন তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী শামসুদ্দীন আহমেদ ছজু। পরে আদালত সকল তথ্য যাচাই-বাছাই ও সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে ফোরকানকে উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে ছজুকে আমতলীর উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত ঘোষণা করে আদেশ দেন।
এ বিষয়ে শামসুদ্দিন আহমেদ ছজুর আইনজীবী অ্যাডভোকেট জগদীশ চন্দ্র শীল বলেন, গোলাম সরোয়ার ফোরকান ২০১৩ সালে তার নিজ নামে এবং তার মালিকানাধীন বনানী ট্রেডার্সের নামে এক বছর মেয়াদে পটুয়াখালীর রূপালী ব্যাংকের একটি শাখা থেকে ঋণ তোলেন। কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ে তিনি ঋণ পরিশোধ না করায় বাংলাদেশ ব্যাংকের ঋণ খেলাপির তালিকায় তার নাম অন্তর্ভুক্ত হয়।
এরপর ২০১৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর তার ঋণের অনুকূলে শতভাগ সুদ মওকুফের জন্য রূপালী ব্যাংকের প্রধান শাখায় আবেদন করেন। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে ওই বছরের ২০ ডিসেম্বর এক বছরের মধ্যে প্রদানের জন্য ৮০ ভাগ সুদ মওকুফ করেন। এ টাকাও তিনি যথাসময়ে পরিশোধ করতে ব্যর্থ হন।
আইনজীবী আরও বলেন, গোলাম সরোয়ার তার ঋণ খেলাপির এসব তথ্য গোপন করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিজয়ী হন। পরে আমার মক্কেল নিজেকে বিজয়ী দাবি করে ফোরকানকে চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার জন্য আদালতে মামলা করেন। আদালত আজ এ রায় দেন।
এ বিষয়ে জানতে বিবাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিকেল পাঁচটার পরে কথা বলবেন বলে জানান।
এ ব্যাপারে বরগুনা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দিলীপ কুমার হাওলাদার বলেন, আমাদের কাছে এখনো কোনো কাগজ এসে পৌঁছায়নি। পেলে আমরা ব্যবস্থা নেব।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

হালিমা খাতুন স্কুলের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি, বরিশাল







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
ঝালকাঠিতে সন্তানের অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ আরও ছয় মাস বাড়ছেঢাবিতে ভর্তি আবেদন শুরুবরিশালে ছাত্রলীগ পরিচয়ে প্রকাশ্যে শোরুমে লুগৌরনদিতে ১০ সাংবাদিককে দুই ঘন্টা অবরুদ্ধজামায়াত ত্যাগের প্রক্রিয়া শুরু বিএনপি’রকরোনা/ কুয়েতে ১ মাসব্যাপী কারফিউ ঘোষণামনপুরা ৫০ শয্যা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চলছে খুড়নির্দলীয় কমিশনের অধীনে নির্বাচন চাই : মির্জশস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় প্রতিকৃতিপটুয়াখালীতে নির্মাণাধীন পায়রা সেতু থেকে পজমজম কূপের প্রধান প্রকৌশলী আর নেইপুলিশ হেফাজতে বরিশালে শিক্ষানবিশ আইনজীবীর মজামিন পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোররমজা‌নে‌ওে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা
%d bloggers like this: