বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে আগুন লাগার গুজব ছড়িয়ে রোগীদের মোবাইল চুরি

  • আপডেট টাইম : সেপ্টেম্বর ১১ ২০২১, ০৬:৪৩
  • 14 বার পঠিত
বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে আগুন লাগার গুজব ছড়িয়ে রোগীদের মোবাইল চুরি

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডের গুজব ছড়িয়ে মুঠোফোন চুরির ঘটনা ঘটেছে। আজ শনিবার বেলা ২টার দিকে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডসহ বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মনিরুজ্জামান শাহীন জানিয়েছেন, আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হাসপাতালে সূত্র জানান, শনিবার বেলা ২টার দিকে হঠাৎ করে হাসপাতালের মূল ভবনের দোতলার পূর্ব পাশে আগুন লাগার খবর ছড়িয়ে পরে। কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই কিছু লোক আগুন আগুন বলে চিৎকার শুরু করে। এ সময় দোতলা থেকে চারতলা পর্যন্ত পূর্বপাশের বিভিন্ন ওয়ার্ডে থাকা রোগী ও স্বজনরা তারাহুরা করে নীচে নামতে থাকেন। যারা নীচে নামছিল তারা কেউই আগুন লাগার দৃশ্য দেখেননি। এমনকি কোথায় লেগেছে তাও বলতে পারছেন না। পরে হাসপাতালের স্টাফরা খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন দোতলার শিশু ওয়ার্ডে কিছু লোক আগুন আগুন বলে চিৎকার শুরু করলে রোগীসহ সবাই দৌড়ে ওয়ার্ড থেকে বের হয়ে হাসপাতাল ভবনের বাহিরে নিরাপদ দূরত্বে গিয়ে জড়ো হয়। সেই ফাঁকে বেশ কিছু ওয়ার্ড থেকে মোবাইল ফোন চুরির ঘটনা ঘটেছে। রোগীর স্বজনরাদের ধারনা সংঘবদ্ধ চোরচক্র এ ঘটনা ঘটিয়েছে, বড় ধরণের চুরি সংগঠিত করার লক্ষ্যে।

শিশু ওয়ার্ড সূত্রে জানা গেছে- ওয়ার্ডটি আগুন লাগার ঘটনাই ঘটেনি। ঘটনার সময় একজন অধ্যাপকসহ চিকিৎসকরা ওয়ার্ডেই ছিলেন। দুজন লোক আকস্মিক আগুন আগুন বলে চিৎকার শুরু করলে সবাই ওয়ার্ডে ভেতর থেকে বাহিরে দৌড়ে চলে যান। আর এ সময়ের মধ্যেই ওয়ার্ডের ভেতর থেকে দুটি মোবাইল ফোন চুরি হয়ে যায়।

হাসিনা নামে অপর একজন বলেন, ঘটনার আগে এক শিশু রোগীর স্বজন মোবাইলে চার্জ দেওয়ার চেষ্টা করছিল। সকেটে চার্জার প্রবেশ করাতে গিয়ে স্পার্ক করে, তবে কোনো আগুন লাগার ঘটনা ঘটেনি। ওই সময় মহিলা একটু ভয় পেয়ে আতকে উঠলে পাশে থাকা লোকজন আগুন লাগার গুজব ছড়িয়ে দেয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের লোকজনও আসেন তবে কোথাও কেউ আগুন খুঁজে পায়নি।

হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার আবুল কালাম জানান, আগুন লাগার কথা শুনে কেউ আর তা যাচাই করেননি। রোগী ও তাদের স্বজনরা দৌড়ে হাসপাতাল ভবনের বাহিরে চলে আসেন। হাসপাতালের স্টাফরা তাদের বারণ করলেও তারা শোনেননি। পরে অনেক বুঝিয়ে আগুন যে লাগেনি তার নিশ্চয়তা দিয়ে রোগী ও তাদের স্বজনদের স্ব স্ব ওয়ার্ডে ফেরত পাঠানো হয়। এরপর বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে মোবাইল চুরির খবর পাচ্ছি।

হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মনিরুজ্জামান শাহীন বলেন, ঘটনাটি এক ধরনের প্রতারণামূলক। আগুন লাগার গুজব ছড়িয়ে রোগীদের মালামাল চুরির চেষ্টা চালানো হয়েছে। মৌখিকভাবে কিছু মোবাইল খোয়া যাওয়ার কথা শুনছি। তবে কেউ লিখিত দেয়নি। বিষয়টি পুলিশ প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি সিসি ক্যামেরার ফুটেজও পর্যালোচনা করা হবে। যাতে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা আর কেউ ঘটাতে না পারে। সেইসাথে আজকের ঘটনা পরিকল্পিত হয়ে থাকলে আর তা তদন্তে বেরিয়ে আসলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

হালিমা খাতুন স্কুলের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি, বরিশাল







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
বেলভিউ হসপিটাল এন্ড মেডিকেল সার্ভিসেস (প্রাঃবাংলাদেশ ও শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসায় জাপিওন থেকে ‘শিশু বিশেষজ্ঞ’! অপচিকিৎসায় শিশমোটরসাইকেল কিনে না দেওয়ায় জিলা স্কুলের ছাত্বরিশালে দুর্গা পূজায় করোনার ধাক্কামঠবাড়িয়া সাফা ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যভোলায় গলায় ফাস দেয়া অবস্থায় গৃহবধূর মরদেহ উদকার্গো জাহাজের ধাক্কায় মাছধরা ট্রলার ডুবি আসামির শরীরজুড়ে নির্যাতনের চিহ্ন, জুডিশিয়াল বাংলাদেশ ও পাকিস্তানকে সহজেই ‘না’ বলা যায় বরিশালে করোনায় ১ জনের মৃত্যুবরগুনায় আ.লীগ-যুবলীগ নেতাসহ ১২ জন কারাগারেহিজলায় স্কুলে যাওয়ার পথে ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনারাস্তায় সাইড না দেওয়ায় ব্যবসায়ীকে চড় এমপি রিচলতি বছরে ৫জি চালু হবে : জয়
%d bloggers like this: