ঝালকাঠি জেলা পরিষদ নির্বাচন : পনির নাকি আজাদ পাচ্ছেন মনোনয়ন?

  • আপডেট টাইম : সেপ্টেম্বর ০৫ ২০২২, ০৪:৫২
  • 174 বার পঠিত
ঝালকাঠি জেলা পরিষদ নির্বাচন : পনির নাকি আজাদ পাচ্ছেন মনোনয়ন?

শাকিব বিপ্লব ::: ঝালকাঠি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচনে প্রার্থীতা চুড়ান্তকরণে দলীয় হাইকমান্ড এখনো কোন সিদ্ধান্তে পৌছাতে পারেনি। কারণ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দুইজন প্রার্থীকে প্রস্তুত রাখতে গিয়ে এক সমিকরন সামনে এসে দাড়িয়েছে। সেক্ষেত্রে খান সাইফুল্লাহ পনিরকে নিয়েই ভাবনায় পরেছে। পনিরকে ভাবা হচ্ছিল জেলা পরিষদের মনোনয়ন দেয়ার। কিন্তু সেই সমিকরণে জাতীয় নির্বাচনে পনিরকে দ্বিতীয় প্রার্থী হিসেবে প্রস্তুত রাখতে গিয়ে আপাতত জেলা কমিটির এই শীর্ষ নেতাকে জেলা পরিষদের মনোনয়ন না দেয়ার এখন পর্যন্ত সিদ্ধন্ত রয়েছে। দলীয় হাইকমান্ডের একাধিক নেতা না প্রকাশে অপারগতা জানিয়ে বলেন- আগামী ১০ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন বোর্ডের অনুষ্ঠেয় বৈঠকে এ বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে, কে হচ্ছেন আওয়ামী লীগ দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী। সেক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত মোঃ ফয়জুর রব আজাদের নামটি তালিকার সামনে রাখা হয়েছে। যদিও দলের বিভাগীয় সাংগঠিক টিম ও বেশ কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টে রাজাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ ফয়জুর রব আজাদ ও খান সাইফুল্লাহ পনিরকে সার্বিক বিবেচনায় প্রার্থী করা যেতে পারে বলে মতামত দেয়া হয়েছে।

এদিকে মনোনয়ন বিক্রির কার্যক্রম আজ রবিবার ( ৪ সেপ্টেম্বর) শুরু হলেও আলোচ্য এ দুই প্রার্থী এখনো মনোনয়ন সংগ্রহ করেন নি। তবে গুঞ্জন শোনা গেছে প্রতিদ্বনন্দ্বীতায় থাকা আরও ৪ প্রার্থী পনির ও আজাদের দিকে তাকিয়ে থাকায় তারাও মনোনয়ন ক্রয় থেকে বিরত থেকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। সূত্র মতে- স্থানীয় রাজনীতিতে পনির চাপের মধ্যে পড়েছেন। কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে থাকা কোন এক প্রভাবশালী নেতা চাচ্ছেন পনির জেলা পরিষদের প্রার্থী হোক। পনির প্রার্থী হলে তার মনোনয়ন চুড়ান্ত এমন আভাসে ওই প্রভাবশালী নেতা হাফ ছেড়ে বাচেন, আগামী সংসদ নির্বাচনে তার পথের কাটা দূরিভূত হওয়ার ভাবনায়। কারন পনিরই হচ্ছেন জাতীয় নির্বাচনে তার বিকল্প প্রার্থী হিসেবে দলীয় হাইকমান্ড তাকে প্রস্তুতি নিতে সংকেত দিয়ে রেখেছে। এ নিয়ে পনিরের ওপর ওই নেতা নাখোশ হওয়ায় তিনি চাচ্ছেন না স্থানীয় রাজনীতি টিকে থাকার সমিকরনে প্রভাবশালী ওই নেতা তাকে চেপে ধরুক।

ধারণা পাওয়া গেছে- নিজেকে রক্ষায় পনির শেষমেষ দুই এক দিনের মধ্যে মনোনয়ন কিনতে পারেন অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও। বর্তমান জেলা প্রশাসক সাবেক চেয়ারম্যন সরদার শাহ আলম তিনিও মনোনয়নপত্র কিনতে মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে আছেন। পনিরের সাথে শাহ আলমের সম্পর্ক ভালো যাচ্ছেনা। কেন্দ্রীয় একটি সূত্র জানায়- ৮ টি বিভাগীয় সাংগঠনিক টিম ৬১ টি জেলার চেয়ারম্যান প্রর্থীদের নাম চুড়ান্ত করার ক্ষেত্রে বিতর্কিত ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের নাম রাখেন নি। এ ক্ষেত্রে বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের দায়িত্বে থাকা দলের সম্পদকমন্ডলীর সদস্য, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও সাগঠনিক সম্পাদকরা জেলা পর্যায় থেকে নামের তালিকা সংগ্রহ করে প্রতিটি জেলার জন্য কমপক্ষে দুইজন নেতার নামের সমন্বয়ে একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রধানমন্ত্রীর হাতে দিয়েছেন।

জানা গেছে- সে তালিকায় সরদার শাহ আলমের নাম নেই। এবার যদিও আরও ৩ প্রার্থী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান জয়, সাবেক জেলা পরিষদের সদস্য শিল্পপতি ছালেক তালুকদার ও সাবেক নলছিটি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিকে মোস্তফা মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে রয়েছেন। কিন্তু আলোচনায় রয়েছেন- পনির, আজাদ ও শাহ আলম। বিশেষ করে পনিরকে নিয়ে স্থানীয় রাজনীতির ঘোরপ্যাচে খান সাইফুল্লাহ পনির আলোচনায় থাকলেও শেসমেষ কি ঘটে তা দেখার একধরনের চমক সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু নিরবে ফয়জুর রব আজাদ প্রচারনার পাশাপাশি কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ রাখছেন বলেন জানা গেছে। ঢাকার একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়- আজাদের রাজনৈতিক ইতিহাস-ইতিবৃত্তে ও পারিবারিক ব্যাকগ্রাউন্ডে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ড তার উপর অনেকটা সন্তুষ্ট। কেন্দ্রীয় ওই নেতা কেন পনিরকে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে বসাতে এত ব্যাকুলতা আদ্যপান্ত কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডে কানে যাওয়ায় নেতার কোন সুপারিশ আমলে না নিত। এ বিষয়ে তারা চুপ থাকলেও প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রীর কানে পৌছে দিয়েছেন ‘ঝালকাঠি পরিস্থিতি’। সেই সাথে পনির নিয়ে জটিলতা অবসান ও ওই প্রভাবশালী নেতাকে কোনঠাসা করার অভিপ্রায়ে বিকল্প যোগ্য প্রার্থী হিসেবে মোঃ ফরজুর রব আজাদকে চুরান্ত প্রার্থী হিসেবে ভাবা যায় কিনা তা নিয়ে রাজনৈতিক হিসেবনিকেশ চলছে।

অপর একটি সূত্র জানায়- রাজাপুর গালুয়া পীর বাড়ির সন্তান ও ঝালকাঠি ১ আসনের সাংসদ বজলুল হক হারুন ওরফে বিএইচ হারুন হচ্ছেন আজাদের বড় ভাই। পীর বাড়ির সন্তান হিসেবে তাদের পরিচয় থাকায় এলাকায় যেমন জনপ্রিয়তা রয়েছে, তেমন দলের মধ্যে কোন বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে লিপ্ত না থাকার বিষয়টি ফয়জুর রব আজাদের জন্য প্লাজ পয়েন্ট হিসবে দাড়িয়েছে। তাছাড়া ঢাকায় তাদের শক্ত লবিং থাকায় আজাদের নামটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে আলদাভাবে পৌছানো হয়েছে। আজাদও অনেকটা নির্ভার। যোগ্যতার আলোকে জেলার অপরাপর প্রার্থীদের নিয়ে বিতর্ক এবং রাজনীতির কুটচাল থেকে জেলা পরিষদ নির্বাচনে সচ্ছতা আনতে আজাদকে শেষমেষ দলীয় মনোনয়ন অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না। স্থানীয় শেষান্তে কে পাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন তা সম্ভবত ১০ সেপ্টেম্বর চুড়ান্ত ঘোষণা আসতে পারে। কারন ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন ক্রয়ের শেষ দিন। এখন এনিয়েই ঝালকাঠির রাজনীতি সরগরম।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
বাবুগঞ্জে ককটেল বিস্ফোরণ, বিএনপির ৫৮ নেতাকর্গোলাপবাগ মাঠে বিএনপিকে সমাবেশর অনুমতিবিস্ফোরক মামলায় ফখরুল-আব্বাস গ্রেপ্তার: ডিবিজরুরি বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটিফেন্সিডিলবাহী পিকআপকে ধাওয়া, দুর্ঘটনায় দুই রমির্জা ফখরুল ও মির্জা আব্বাসকে জিজ্ঞাসাবাদেআজ বিকেলে বিএনপির সংবাদ সম্মেলনপিরোজপুরে বিএনপি-জামায়াতের শতাধিক নেতাকর্মসাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’, সমুদ্রবন্দরে ২ নম্আজ বরিশাল মুক্ত দিবসসারা দেশে বিএনপির প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচআবারও মিরাজ ঝলক ॥ সিরিজ বাংলাদেশেরআইসিসি র‍্যাংকিংয়ে সাত ধাপ লাফ দিলেন সাকিবরিজভী, সালাম, আমান, খোকন, এ্যানী, জুয়েল, শিমুল ব১৪টি দলকে কারণ দর্শাতে বলেছে ইসি
%d bloggers like this: