‘অস্ত্র প্রতিযোগিতা বন্ধ করুন, শিশুকে খাদ্য দিন’

  • আপডেট টাইম : সেপ্টেম্বর ২৩ ২০২২, ২১:৪৯
  • 111 বার পঠিত
‘অস্ত্র প্রতিযোগিতা বন্ধ করুন, শিশুকে খাদ্য দিন’

জাতিসংঘ সদর দফতরে সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাজাতিসংঘ সদর দফতরে সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়তে অস্ত্র প্রতিযোগিতা ও যুদ্ধ বন্ধ করতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বিশ্ব বিবেকের কাছে আমার আবেদন, অস্ত্র প্রতিযোগিতা, যুদ্ধ ও নিষেধাজ্ঞা বন্ধ করুন। শিশুকে খাদ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা ও নিরাপত্তা দিন। শান্তি প্রতিষ্ঠা করুন।’ জাতিসংঘ সদর দফতরে সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে শুক্রবার প্রদত্ত ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

কোভিড-১৯ মহামারি প্রাদুর্ভাবের পর এই প্রথম ১৯৩টি সদস্য দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের সশরীরে উপস্থিতির মাধ্যমে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশন ১৩ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে সংস্থার সদর দফতরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শেখ হাসিনার ভাষণে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, শান্তি ও স্থিতিশীলতা, জলবায়ু পরিবর্তন, খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা, কোভিড-১৯ মহামারি, ফিলিস্তিন এবং অভিবাসন বিষয়ক বৈশ্বিক ও বাংলাদেশের দৃষ্টিভঙ্গি উল্লেখযোগ্যভাবে স্থান পেয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে বরাবরের মতো এবারও জাতিসংঘে বাংলায় ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে বলেন, ‘যুদ্ধ বা একতরফা জবরদস্তিমূলক অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা, পাল্টা-নিষেধাজ্ঞার মতো বৈরী পন্থা কখনও কোনও জাতির মঙ্গল বয়ে আনতে পারে না। পারস্পরিক আলাপ-আলোচনাই সঙ্কট ও বিরোধ নিষ্পত্তির সর্বোত্তম উপায়। আমরা বিশ্বাস করি, সংঘাতের মূল কারণগুলো সমাধান না করে আমরা শান্তি বজায় রাখতে পারি না।’

বিশ্ববাসীর শান্তি কামনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ইউক্রেন ও রাশিয়ার সংঘাতের অবসান চাই। নিষেধাজ্ঞা পাল্টা নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে একটি দেশকে শাস্তি দিতে গিয়ে নারী, শিশুসহ ও গোটা মানবজাতিকেই শাস্তি দেওয়া হয়। এর প্রভাব কেবল একটি দেশেই সীমাবদ্ধ থাকে না, বরং সব মানুষের জীবন-জীবিকা মহাসঙ্কটে পতিত হয়। মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়। মানুষ খাদ্য, বাসস্থান, চিকিৎসা ও শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়। বিশেষ করে, শিশুরাই বেশি কষ্ট ভোগ করে। তাদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারে হারিয়ে যায়।

‘আমরা দেখতে চাই, একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্ব। যেখানে থাকবে বর্ধিত সহযোগিতা, সংহতি, পারস্পরিক সমৃদ্ধি এবং ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা। আমাদের একটি মাত্র পৃথিবী এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে এই গ্রহকে আরও সুন্দর করে রেখে যাওয়া আমাদের দায়িত্ব।’

বিশ্বব্যাপী নানা সংকটের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই অধিবেশন এমন এক সময়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার সঙ্গে বিশ্বজুড়ে জলবায়ু পরিবর্তন, সহিংসতা ও সংঘাত, কোভিড-১৯ মহামারির মতো একাধিক জটিল এবং বহুমাত্রিক প্রতিকূলতায় পৃথিবী নামক আমাদের এই গ্রহ আজ জর্জরিত। মানবিক চাহিদা গভীর হচ্ছে, বৈষম্য আরও প্রকট হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘গত আড়াই বছরে বিশ্ব যখন করোনাভাইরাস মহামারির বিধ্বংসী প্রভাব থেকে মুক্ত হতে শুরু করেছে, তখন রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাত বিশ্বকে একটি সম্মিলিত অনিশ্চয়তায় নিমজ্জিত করেছে।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
বাবুগঞ্জে ককটেল বিস্ফোরণ, বিএনপির ৫৮ নেতাকর্গোলাপবাগ মাঠে বিএনপিকে সমাবেশর অনুমতিবিস্ফোরক মামলায় ফখরুল-আব্বাস গ্রেপ্তার: ডিবিজরুরি বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটিফেন্সিডিলবাহী পিকআপকে ধাওয়া, দুর্ঘটনায় দুই রমির্জা ফখরুল ও মির্জা আব্বাসকে জিজ্ঞাসাবাদেআজ বিকেলে বিএনপির সংবাদ সম্মেলনপিরোজপুরে বিএনপি-জামায়াতের শতাধিক নেতাকর্মসাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’, সমুদ্রবন্দরে ২ নম্আজ বরিশাল মুক্ত দিবসসারা দেশে বিএনপির প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচআবারও মিরাজ ঝলক ॥ সিরিজ বাংলাদেশেরআইসিসি র‍্যাংকিংয়ে সাত ধাপ লাফ দিলেন সাকিবরিজভী, সালাম, আমান, খোকন, এ্যানী, জুয়েল, শিমুল ব১৪টি দলকে কারণ দর্শাতে বলেছে ইসি
%d bloggers like this: