কর্মবিরতি উপেক্ষা করে যাত্রী নিয়ে বরিশাল ছেড়েছে এমভি গ্রীনলাইন

  • আপডেট টাইম : নভেম্বর ৩০ ২০১৯, ২০:৩৬
  • 144 বার পঠিত
কর্মবিরতি উপেক্ষা করে যাত্রী নিয়ে বরিশাল ছেড়েছে এমভি গ্রীনলাইন

শ্রমিকদের কর্মবিরতি উপেক্ষা করে বরিশাল থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে বরিশাল-ঢাকা নৌ রুটের ওয়াটার ওয়েজ এমভি গ্রীন লাইন। জেলা প্রশাসন, র‌্যাব, নৌ বন্দর এবং পুলিশ প্রশাসনের উপস্থিতিতে শনিবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর ৩টা ৫ মিনিটে যাত্রী নিয়ে এমভি গ্রীন লাইন-৩ নামক লঞ্চটি বরিশাল বন্দর ত্যাগ করে। এছাড়াও রাষ্ট্রিয় নৌযান সংস্থা বিআইডব্লিউটিসি’র এমভি মধুমতি জাহাজটিও বরিশাল নদী বন্দরে অবস্থান করছে। সন্ধ্যার পূর্বে সেটিও যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্য ছেড়ে যাবে। বিআইডব্লিউটিএ’র বরিশাল কার্যালয়ের নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের পরিদর্শক (টিআই) মো. কবির হোসেন জানান, ‘কেন্দ্রীয়ভাবে নৌযান শ্রমিকরা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে শুক্রবার রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে কর্মবিরতি পালন করছে। এর ফলে শনিবার সকাল থেকে বরিশালের অভ্যন্তরিন নৌ রুটে সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এমনকি বরিশালে নদী বন্দরে থাকা লঞ্চগুলো ঘাট থেকে সরিয়ে কীর্তনখোলা নদীর ওপারে চরকাউয়া এলাকায় বার্দিং করে রেখেছে। ফলে যাত্রীদের সীমাহিন দুর্ভোগে পড়তে হয়। টিআই কবির হোসেন বলেন, ‘শ্রমিকদের কর্মবিরতির মধ্যেও দিবা সার্ভিসের এমভি গ্রীন লাইন-৩ সকালে ঢাকা সদরঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে বরিশালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। নৌযানটি দুপুর ২টার পরে বরিশাল নদী বন্দরে পৌছায় এবং যাত্রী নিয়ে ৩টার পরে পুনরায় ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। তিনি বলেন, ‘গ্রীন লাইনের শ্রমিকরা কর্মবিরতিতে অংশ নেয়নি। এ কারনে ওই জাহাজটি চলাচল করেছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তায় জাহাজটি যাত্রী নিয়ে বরিশাল থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এসময় বিআইডব্লিউটিসি’র রকেট ঘাটে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাব, থানা, ডিবি পুলিশ, নৌ পুলিশ এবং নৌ বন্দরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। টিআই কবির হোসেন বলেন, ‘প্রশাসনের কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকায় এমভি গ্রীন লাইন ঢাকার উদ্দেশ্যে নির্বিঘেœ ছেড়ে গেছে। এ ক্ষেত্রে আন্দোলনকারী শ্রমিকরা বাঁধা দিতে আসতে পারেনি। তাছাড়া অন্যান্য লঞ্চ বন্ধ থাকায় গ্রীন লাইন নৌযানে স্বাভাবিক দিনের তুলনায় যাত্রীও অনেক বেশি হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের বরিশাল আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি মাস্টার আবুল হাসেম বলেন, ‘আমরা কাউকে জোর করে আন্দোলনে নামাতে বা লঞ্চ চালাতে বাধা দেইনি। যারা আন্দোলনে অংশগ্রহন করেছে তারা তাদের নিজ নিজ স্বার্থেই এসেছে। কেননা এটা তাদের রুটি-রুজির ব্যাপার। তিনি বলেন, ‘গ্রীন লাইন-৩ জাহাজটি ঢাকা থেকে যাত্রী নিয়ে এসেছে। একইভাবে বরিশাল থেকেও যাত্রী নিয়ে গেছে। যারা ওই নৌযানে রয়েছে তারাও শ্রমিক। বিষয়টি নিয়ে আমরা কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে কথা বলেছি। গ্রীনলাইন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শ্রমিক ফেডারেশনের এই নেতা।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

হালিমা খাতুন স্কুলের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি, বরিশাল







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
নিষেধাজ্ঞায় পড়তে যাচ্ছে বার্সা-রিয়ালসহ ১২টি লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়ানোর সুপারিশউজিরপুরে সাতলার পটিবাড়ি ৯০০ বিঘা জমিতে মাৎস্দুমকিতে ডায়রিয়ায় শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যুঅনলাইন প্রেসক্লাব বরিশাল’র কমিটি ঘোষণা, সভাপ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১০২ জনের মৃত্যুবরিশালে বসছে দুই শতাধিক সিসি ক্যামেরামাওলানা মামুনুল হক গ্রেপ্তারবাউফলে স্বামীর চোখ তুলে নিলো স্ত্রী ও তার প্রপুরো পরিবারসহ করোনায় আক্রান্ত প্রখ্যাত চিকিলকডাউনে কাজ না পেয়ে রাঙাবালীতে দিনমজুরের গলাজানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে সমাহিত হবেন কবরীসুদের তিনগুণ টাকা-জমি দিয়েও প্রাণ গেল স্ত্রীটিকার তৃতীয় ডোজও নেয়া লাগতে পারেএকদিনে ১০১ জনের মৃত্যুতে নয়া রেকর্ড
%d bloggers like this: