রাঙ্গাবালীতে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ

  • আপডেট টাইম : ডিসেম্বর ২৯ ২০১৯, ০৯:৫৫
  • 107 বার পঠিত
রাঙ্গাবালীতে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে দরজা বন্ধ করে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে লাঞ্চিত ও অফিসের ট্রেইণারকে শ্লীলতাহানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার বেলা ১১ টার দিকে রাঙ্গাবালী উপজেলা প্রশাসনিক ভবনের মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তিন জনের নাম উল্লেখ ও পাঁচ/ছয় জনকে অজ্ঞাত করে রাঙ্গাবালী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের ট্রেইণার সানজিদা আক্তার। অভিযুক্তরা হলো- উপজেলার কোড়ালীয়া গ্রামের নজরুল হাজীর ছেলে মাহমুদ হাসান, ভূইয়াকান্দা গ্রামের খোকন ভূইয়ার ছেলে বনি আমিন, বাহেরচর গ্রামের আলী আকবর ডাক্তারের ছেলে মনিরুল ইসলাম।

জানাগেছে, কিশোর-কিশোরী ক্লাব স্থাপন প্রকল্পের অধীনে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার আওতায় জেন্ডার প্রোমোটার পদে মরিয়ম স্বর্ণা নামের একজনকে অবৈধভাবে নিয়োগ দেয়ার জন্য প্রভাবশালীরা তদবীর করে। প্রভাবশালীদের তদবীরে
স্বর্ণাকে নিয়োগ দেয়া হয়।

এরপর যোগদানের দিন শনিবার বেলা ১১ টার দিকে আরও দাবী দাওয়া নিয়ে হাজির হয় স্বর্ণার স্বজনরা। দাবী না রাখায় মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের লোকদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়। এরপর মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তাসলিমা বেগমের অফিসে পাঁচ-ছয় জন বখাটে গিয়ে তার রুম আটকিয়ে বিভিন্নভাবে হুমকি দিতে থাকে।

অন্যদিকে মাহমুদ, বনি আমিন ও মনির অফিসের ট্রেইণার সানজিদা আক্তারকে অফিসের দরজা আটকে দিয়ে লাঞ্ছিত করে।
অভিযুক্ত বনি আমিন স্কুলছাত্র মহব্বত খুনের মামলার আসামী, মাহমুদ হাসান নারী নির্যাতন মামলার আসামী ও মনিরুল ইসলাম চেক জালিয়াতি মামলার আসামী।

প্রত্যক্ষদর্শী নিতু বেগম, মরিয়ম মালা, অনামিকা, হাসিনুর, পারুল ও চম্পা বেগম জানান, হঠাৎ করে পাঁচ/ছয়জন লোক এসে অফিসের তিনটি দরজা আটকে দেয়। এরপর কর্মকর্তা তাসলিমাকে একটি রুমে ও ট্রেইণার সানজিদাকে অন্য রুমে নিয়ে যায়।
রুম আটকে দিয়ে সানজিদাকে অশ্লিল ভাষায় গালি দিতে থাকে তারা। সানজিদা মোবাইল হাতে নিলে তার মোবাইলটিও কেড়ে নেয়। কিছুক্ষণ পরে আমারা সানজিদাকে কান্না করতে দেখি।

অবৈধ নিয়োগের ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তাসলিমা বেগম বলেন, আবেদন ও ভাইবায় অংশগ্রহন না করে মরিয়ম স্বর্ণা কিভাবে নিয়োগ পেল তা আমি জানিনা।

রাঙ্গাবালী থানা অফিসার ইনচার্জ আলী আহম্মেদ জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। অভিযোগ এলে ব্যবস্থা নিব। রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। এটি অত্যান্ত দুঃখজনক। ভিকটিমকে অভিযোগ করার জন্য বলেছি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিব।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
বাবা মা বে‌শি ভালবা‌সে তাই ৪ বছ‌রের ছোট বোনবরিশালে স্ত্রী হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদন্ডস্বর্ণের ভরির ৭৪ হাজার ৮ টাকাকলাপাড়ায় মহিপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে চেকুয়াকাটায় হোটেল মোটেল মালিক কর্মচারীদের নিয়মেয়র সাদিকআব্দুল্লাহকে ফুলেল শুভেচ্ছাচ্যালেঞ্জিং কাজের অধিকারী ডিবি হোক মানুষের আবিদেশি কোম্পানি দিয়ে ভোলার গ্যাস উত্তোলনের প‘আংশিকভাবে প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার সুযোগ ন৩ কোটি টাকায় নির্মিত আশ্রয়কেন্দ্র নদীগর্ভেপটুয়াখালীতে ১২৬ বছরের ঐতিহ্যবাহী টাউন হল রক্ঐক্যবদ্ধ বৈশ্বিক কর্মপরিকল্পনা গ্রহণের আহ্দেশে কখনও রাতে ভোট হয়নি : সিইসিবানারীপাড়া পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার কান্ডারী ঝালকাঠিতে নদীর পানি বৃদ্ধি, টানা বৃষ্টিতে জন
%d bloggers like this: