বরিশালের জ্বীন ছারানোর নামে মানসিক রোগীকে   হত্যা, ভূয়া ফকিরসহ ৩ জন গ্রেফতার

  • আপডেট টাইম : ফেব্রুয়ারি ০৪ ২০২০, ২১:৪৯
  • 43 বার পঠিত
বরিশালের জ্বীন ছারানোর নামে মানসিক রোগীকে   হত্যা, ভূয়া ফকিরসহ ৩ জন গ্রেফতার

শামীম আহমেদ ॥ বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ থানার আউলিয়াপুরে চিকিৎসার নামে কালাম মৃধা(৪২) নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে ও পুকুরে ডুবিয়ে হত্যা করা হয় এবং ঘটনার পর থেকেই মূল
আসামীসহ অন্য আসামী পলাতক ছিল।

আসামী রিয়াজউদ্দিন ফকির তার স্ত্রী ও ছেলেসহ বরিশালের রূপাতলী এলাকায় অবস্থান করছে।
তারপর র‌্যাবের অভিযান করে ৪ ফেব্রয়ারী সকাল ১১.৩০ সময় রূপাতলী এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন মোঃ রিয়াজউদ্দিন ফকির(৪৮), পিতাঃ মৃত কাঞ্চন আলী ফকির, ২) মোছাঃ তাসলিমা আক্তার লাকী(৪২), স্বামীঃ মোঃ রিয়াজউদ্দিন ফকির, ৩) মোঃ তৗহিদুর রহমান(১৮), পিতাঃ মোঃ রিয়াজউদ্দিন ফকির, সর্ব সাং আউলিয়াপুর, থানাঃ বাকেরগঞ্জ, জেলাঃ বরিশাল বলে জানায়। আকটকৃত তিন জনই
প্রাথমিক ভাবে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের বাকেরগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে জানা যায়, কালাম মৃধার স্ত্রী শুক্রবারে সকালে দুই দেবরকে সাথে নিয়ে রিয়াজ ফকিরের বাড়ীতে যায়। রিয়াজ ফকির তাহার চাচাতো ভাই অসীম ফকির সহ ৪/৫ মিলে সকালে ও বিকালে কালাম মৃধাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ও বাড়ীর পুকুরে চুবায়। এতে কালাম মৃধা অসুস্তহয়ে পড়লে তাকে মাজার সংলগ্ন একটি রুমে রাখা হয়।

কালাম মৃধা সন্ধ্যায় মারা যাওয়ার পর হত্যাকারীরা তাহার লাশ বাড়ীর পাশে বাগানে ফেলে রাখে। আসামীর দাদা মৃত ফকির আঃ রহমান মুন্সী কালুসা দেওয়ান মাদ্রাসার শিক্ষকতা করতেন এবং মুন্সী পদবী গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে তিনি ফরিদপুরের দত্তপাড়ায় মোহনসা দেওয়ানের মুরিদ হয়ে এলাকায় এসে দরগাহ/খানকাহ খোলেন।

তার মূত্যুর পর আসামীর চাচা সাম দেওয়ান উক্ত পীরদানী চালিয়ে যান এবং নাম দেন দেওয়ান মাজার যা বরিশালের কাউনিয়াতে অবস্থিত। সাম দেওয়ান মারা যাওয়ার পর তার ছেলে খোকন দেওয়ান পীরদানী চালু রাখেন। খোকন দেওয়ান মারা যাওয়ার পর ৪/৫ বছর ধরে বাকেরগঞ্জের আওলিয়াপুরে আসামী পীরদানী ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন।

মৃত কালাম মৃধা মানসিক রোগে ভুগছিলেন।
গত ৩১ জানুয়ারি শুক্রবারে কামালের চিকিৎসা শুরু করেন। চিকিৎসার নামে রোগীকে রিয়াজ উদ্দিনের হুকুমে প্রচন্ড মারধোর করে এবং পুকুরে ঠান্ডা পানিতে ১০১ বার চুবায়। ফলে রোগী মারা যায়। আসামী ফকির ব্যবসার মাধ্যমে রোগীদের ভূয়া চিকিৎসা দেয় এবং তাদের কাছ থেকে টাকা, ছাগল, গরু, চাল,মুরগী ইত্যাদি জিনিস গ্রহণ করে
থাকে।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
পায়রা বন্দরে ভূমি অধিগ্রহনে ক্ষতিগ্রস্থদের কলাপাড়ায় বিষাক্ত গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে এক শির্গলাচিপায় কাঁকড়া চাষে সফল চাষিরাগলাচিপায় সুশীলন এমার্জেন্সি নিউট্রিশন প্রকপটুয়াখালীতে পাঁচটি মাদক মামলার ওয়ারেন্ট’র আকুয়াকাটায় ক্রমশই বাড়ছে অপরাধমূলক কর্মকান্ডমনপুরা সংরক্ষিত বন উজাড় করে চলছে সেন্টারিং এপাথরঘাটায় ঘরের পাটাতন ভেঙে ফুটফুটে এক শিশুর তালতলীতে ছাত্রদলের ১১ নেতার পদত্যাগবরিশাল থেকে প্লাজমা দিতে ঢাকায় গেলেন ২১ পুলিপ্রধানমন্ত্রীর দেয়া ৪টি হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যবরিশাল নগরীতে রিক্সা-ভ্যান শ্রমিকদের ৭ দাবীতবরিশালে পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে হামলা ও ছিনলছিটিতে ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটিকে অবা‌ঞ্ছসালমান শাহ’র ৪৯তম জন্মদিন আজ
%d bloggers like this: