বরিশালে ত্রাণের চাল নিয়ে চালবাজি

  • আপডেট টাইম : এপ্রিল ২২ ২০২০, ১৭:৫৯
  • 46 বার পঠিত
বরিশালে ত্রাণের চাল নিয়ে চালবাজি

শামীম আহমেদ॥ করোনা ভাইরাসের কারনে ঘর বন্ধী মানুষের জন্য সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে। সরকারের ত্রাণ কিংবা যেকোন সহায়তা বাস্তবায়ন করতে হলে তালিকা প্রস্তুত থেকে শুরু করে বিতরণ কার্যক্রমে বড় ভূমিকা পালন করেন সরকারের তৃণমুলের প্রতিষ্ঠান ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা।

করোনার আতঙ্কের প্রেক্ষাপটে সরকার উপজেলা প্রশাসন ও ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিচ্ছিন্নভাবে চাল বিতরণে অনিয়ম কিংবা চাল চুরির খবর বেরিয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যানদের এই অনিয়ম মুহুর্তের মধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হচ্ছে। ত্রাণের চাল নিয়ে চালবাজির এই ধারাবাহিকতায় বরিশালের একজন ইউপি চেয়ারম্যান ও দুইজন ইউপি সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত, একজনের বিরুদ্ধে মামলা ও দুইজন আওয়ামী লীগ
নেতাকে কারাদন্ডও দেয়া হয়েছে। সাময়িক বরখাস্ত হওয়া ইউপি চেয়ারম্যান মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার আন্দারমানিক ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান কাজী শহিদুল ইসলাম ও ইউপি সদস্যরা হলের বাবুগঞ্জের কেদারপুর ইউনিয়নের ৬নং
ওয়াডের্র সদস্য জাকির হোসেন এবং ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য রোকনুজ্জামান রোকন। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা জেলেদের চাল আত্মসাত করেছেন। এছাড়াও গত ১৫ এপ্রিল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার স্টীমারঘাট এলাকার একটি গোডাউন থেকে সরকারী চাল উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় কেদারপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরে আলম বেপারীর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারী ১৮৪ বস্তা চাল উদ্ধারের পর চরম হতাশা বিরাজ করছে জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের ১, ২, ৩, ৪ ও ৫ নং ওয়ার্ডের প্রায় ৭০ জন জেলে পরিবারের মাঝে। চলমান করোনা পরিস্থিতিতে তারা জরুরি ভিত্তিতে তাদের প্রতিজনের জন্য বরাদ্দকৃত ৮০ কেজি করে চাল পেতে জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

তালিকাভূক্ত জেলে কবির হোসেন, নান্নু মিয়া, ইউনুস মোল-া, জাকির সরদার, হাসেম বেপারী, ইসমাইল
সরদারসহ একাধিক জেলেরা সাংবাদিকদের কাছে জানান, ইউনিয়নের ১, ২, ৩, ৪ ও ৫নং ওয়ার্ড থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত তাদের কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদ কমপে-ক্স ভবন। ফলে সুবিধাভোগীদের সুবিধার্থে জেলেদের জন্য সরকারীভাবে চাল বরাদ্দের পর থেকে অতীতের চেয়ারম্যানরাও স্টীমারঘাট বাজারে গোডাউন ভাড়া করে সেখানে চাল রেখে উলে-খিত ওয়ার্ডের সুবিধাভোগী ২৯৯জন জেলের মধ্যে বিতরণ করে
আসছিলো। ফলে তাদের (জেলে) কস্ট অনেকটা লাঘব হতো।

জেলেরা আরও জানান, অতীতের চেয়ারম্যানদের ধারাবাহিকতায় বর্তমান চেয়ারম্যান নুরে আলম বেপারীও ওই গোডাউনে চাল রেখে তাদের (সুবিধাভোগী) মধ্যে চাল বিতরণ করে আসছিলো। ইতোমধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অধিকাংশ সুবিধাভোগীদের মধ্যে চাল বিতরণ করা হয়েছে। বাকি থাকা ৭০জন জেলেদের মধ্যে বিতরণের জন্য রাখা চাল আইন প্রয়োগকারী সদস্যরা স্টিমারঘাট এলাকায় গোডাউন থেকে উদ্ধার করে। উদ্ধার করা ১৮৪ বস্তা চাল থানায় নেয়ার পর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নুরে আলম বেপারী সাংবাদিকদের বলেন, সুবিধাভোগী জেলেদের কস্ট লাঘব করতে অতীতের চেয়ারম্যানদের ন্যায় আমিও স্টীমারঘাট বাজারের গোডাউনে চাল রেখে বিতরণ করেছি। এখানে চাল আত্মসাতের কোন বিষয় নেই। যা সঠিকভাবে তদন্ত করলে সুবিধাভোগীদের বক্তব্যেই প্রকৃত ঘটনা বেরিয়ে আসবে। তিনি আরও বলেন, আমার প্রতিপক্ষের লোকজনে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে আমার জনপ্রিয়তায় ঈশ্বান্মিত হয়ে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য ষড়যন্ত্র করে আসছে। আমি এ ঘটনায় প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মাধ্যমে তদন্ত করার জন্য জোর
দাবি করছি।

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার একাধিক ইউপি চেয়ারম্যানরা জানান, তাদের কাছ থেকে চাল উত্তোলনের বরাদ্দপত্রে (ডিও) স্বাক্ষর নেয়া হলেও তারা চাল হাতে পাচ্ছেন না। উপজেলা প্রশাসন থেকে তাদের পরিষদের নামে বরাদ্দকৃত চাল বিতরণ করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে কোন আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা তাদের কাছে চাল বিতরনের মাষ্টাররোল চাইলে তারা কিছুই দেখাতে পারবেন না।

জেলার একাধিক ইউপি চেয়ারম্যানরা জানান, সরকারীভাবে বরাদ্দকৃত চাল বিতরণের জন্য প্রতিটি ইউনিয়নে একজন করে সরকারী কর্মকর্তা ট্যাগ অফিসার হিসেবে নিয়োজিত থাকেন। এছাড়াও ইউনিয়ন পরিষদের সচিবও সার্বক্ষনিক পরিষদের কাজগুলো মনিটরিং করেন। সেক্ষেত্রে চাল বিতরণে অনিয়ম কিংবা আত্মসাতের ঘটনা ঘটলে সচিব ও সংশি-ষ্ট ট্যাগ অফিসারেরও দায়বদ্ধতা থাকে। কিন্তু সাম্প্রতিক কয়েকটি ঘটনায় শুধু ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যানদের চাল চোর হিসেবে টার্গেট করা হচ্ছে।

তারা আরও জানান, অনেক সময় বরাদ্দের চেয়ে সুবিধাভোগী বেশি থাকেন। সেক্ষেত্রে তারা সমন্বয়ের মাধ্যমে চাল বন্টন করে থাকেন। যা কখনোই ফলাও হয়না। এছাড়া জনগনের সুবিধার্থে ইউনিয়নের যেকোনস্থানে বসে চাল বিতরণ করার নিয়ম রয়েছে। তারা আরও জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাম্প্রতিক সময়ে চাল উদ্ধারের ঘটনাগুলোতে ঢালাওভাবে জনপ্রতিনিধিদের যেহারে চাল চোর হিসেবে সনাক্ত করা হচ্ছে, তাতে ভবিষ্যতে ত্রাণ বিতরণে নিরুৎসাহিত হওয়ার আশংকা করছেন জনপ্রতিনিধিরা।

সূত্রমতে, বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম ইউসুফ আলীর গোডাউন থেকে ২৫৬ বস্তা সরকারি ‘কাজের বিনিময় খাদ্য কর্মসূচি’ (কাবিখার) চাল উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে আটককৃত ইউসুফ আলীকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদ জানান, সরকারী বরাদ্দের চাল ক্রয় বিক্রয় আইনত দন্ডনীয় অপরাধ হওয়ায় ইউসুফ আলীকে
কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।

তথ্যসন্ধানে জানা গেছে, ইউসুফ আলী ওই চাল ক্রয় করার অপরাধা দন্ডিত হলেও বিক্রেতা রয়ে গেছেন ধরাছোঁয়ার বাহিরে। এছাড়া কাজের বিনিময় খাদ্য কর্মসূচির আওতায় যেসব শ্রমিক কাজ করেন তারা কখনই চাল গ্রহণ করেন না। তাই ওই চালের ডিও বিক্রি করার পর শ্রমিকদের মধ্যে টাকা বিতরণ করা
হয়। বিষয়টি সংশি-ষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জেনেও এখন না জানার ভান করছেন।

একইভাবে গত ১৪ এপ্রিল সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির ৫৪ বস্তা চাল কালো বাজারে বিক্রির
অভিযোগে গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের বাকাই বাজারের ডিলার ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি প্রদীপ দত্ত এবং চাল ক্রেতা মুদি ব্যবসায়ী পঙ্কজ সাহাকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ছয়মাসের কারাদন্ড ও উভয়কে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ১৫দিনের কারাদন্ডের রায় ঘোষণা করা হয়। সেখানে
ধারাছোয়ার বাহিরে থেকে গেছেন সংশি-ষ্ট ট্যাগ অফিসার।

প্রতিবন্ধীদের পাশে সরকারী কর্মকর্তা ॥ নগরীর প্রতিবন্ধী শিশু ও অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন বরিশাল উপ-ভূমি সংস্কার কমিশনারের কার্যালয়ের (ডিএলআরসি অফিস) কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। গত ২২ এপ্রিল উপ-ভূমি সংস্কার কমিশনার (ডিএলআরসি) তরফদার মোঃ আক্তার জামীলের নেতৃত্বে অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিজস্ব অর্থায়নে নগরীর কাউনিয়া, শিশুপার্ক কলোনী, চরমোনাই খেয়াঘাট
কলোনী ও রসুলপুর এলাকার প্রতিবন্ধী শিশু পরিবারের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। একইদিন আসন্ন রমজান উপলক্ষে করোনার প্রভাবে সরকারের নির্দেশে ঘরে থাকা নিন্মআয়ের দিনমজুর শতাধিক পরিবারের মাঝে চাল, ডাল, তেল, ছোলা, আলু বিতরণ করা হয়।

ত্রাণ বিতরণে বৈষম্য ॥ এদিকে করোনা ভাইরাসের কারনে ঘরবন্ধী নিন্মআয়ের মানুষদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করছেন সরকার। তারই ধারাবাহিকতায় গৌরনদী উপজেলায় ত্রাণ বিতরণ করছেন উপজেলা প্রশাসন। উপজেলা প্রশাসনের
ত্রাণ বিতরণ নিয়ে উপজেলার বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যানদের মধ্যে চাঁপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় ১০৮ মেট্রিক টন চাল ও নগদ সাড়ে চার লাখ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। গত ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত উপজেলার সাত ইউনিয়নে মাত্র ৯০৫টি পরিবার এবং পৌর এলাকায় ১ হাজার ৪৯৫টি পরিবারের মাঝে ১০ কেজি করে চাল, ৫ কেজি আলু ও ২ কেজি ডাল বিতরণ করা
হয়েছে। অনেক পরিবারকে এক লিটার করে তৈলও দেয়া হয়েছে।

একাধিক ইউপি চেয়ারম্যানরা জানান, একটি পৌরসভার চেয়ে সাত ইউনিয়নে জনসংখ্যা অনেক বেশি। এছাড়াও পৌর এলাকার চেয়ে গ্রামে দরিদ্র জনগোষ্ঠি বেশি বসবাস করে। এমনকি গ্রামীণ হাট-
বাজারগুলোর দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। ফলে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা বিপদের মধ্যে রয়েছে। কিন্তু ত্রাণ বিতরণের ক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত পৌর এলাকায় বেশি সহায়তা দেয়া হচ্ছে। সরকারী সহায়তা ইউনিয়নের দরিদ্র জনগোষ্টির মধ্যে সমভাবে বন্টনের জন্য তারা বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ত্রী আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ এমপির আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর







ফেসবুক কর্নার

শিরোনাম
দৌলতখানে সন্ত্রাসী হামলায় সাংবাদিক আহতআল্লামা শফী মারা গেছেনগলাচিপায় যৌতুকের দাবীতে গৃহবধুর দাঁত উপড়ে ফেপটুয়াখালীতে পৈত্রিক সম্পত্তি রক্ষার দাবীতে নলছিটিতে ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন, একাংশেঝালকাঠিতে করোনা উপসর্গে গৃহবধূর মৃত্যুঝালকাঠিতে বিদ্যালয়ের শহীদ মিনার ভাঙায় ক্ষোভমেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে বমনপুরার মেঘনায় ১২ কিলোমিটার এলাকায় গাছের খুঁবরিশাল থেকে বেনাপোলগামী বাস মাগুরায় দুর্ঘটনএইচএসসি, জেএসসির সিদ্ধান্ত নিতে ২৪ সেপ্টেম্ববরিশালের উজিরপুরে নিরাপদ পান উৎপাদনের ওপর মাবরিশালে র‍্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমান ফেন্সমনপুরা-চরফ্যাসন আসনের সাবেক সংসদের মৃত্যু বাপটুয়াখালীতে র‌্যাব কর্তৃক ৪,৫৪৫ কেজি পলিথিন
%d bloggers like this: